এই ৭ টি স্কিল জানা থাকলে পার্ট টাইম জব বা আউটসোর্সিং করতে পারবেন

আসসালামু আলাইকুম!

বর্তমানে আমারা সবাই কমবেশি ইন্টারনেট জগতে অলস সময় কাটাই। আমরা চাইলে এই অলস সময়কে কাজে লাগাতে পারি! এই অলস সময় টুকু কাজে লাগিয়ে কিন্তু আমরা লেখাপড়ার পাশাপাশি বারতি কিছু টাকা আয় করতে পারি। মোবাইল বা একটি কম্পিউটার দিয়েই আমরা বিভিন্ন ধরনের অনলাইন ভিক্তিক কাজ করার মাধ্যমে টাকা আয় করতে পারি । কিন্তু অনলাইনে কাজ করতে হলে আপনার  নির্দিস্ট কাজের উপর দক্ষতা অর্জন করতে হবে। এমন কয়েকটি কাজ আপনাদের সাথে পরিচয় করে দিবো যা আপনার এই কাজের উপর দক্ষতা থাকলে আপনি অনলাইন থেকে অলস সময়কে কাজে লাগিয়ে আপনি বারতি টাকা আয় করতে পারবেন।                 

১। কন্টেন্ট রাইটার 

আপনি লেখালেখি করতে ভালবাসেন? তাহলে আপনি এই কন্টেন্ট রাইটিং করে আপনি ভাল পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারেন। আপনি যদি ইংরেজি ভাল পারেন তাহলে আপনি ইন্টারন্যাশনাল ওয়েব সাইটে কন্টেন্ট রাইটিং করে আপনি লক্ষ টাকার বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ইংরেজি না জানলেও আপনি বাংলা রাইটিং করে কিছু পরিমান টাকা আয় করতে পারেন বাংলাদেশের বিভিন্ন ওয়েবসাইটে। আপনি চাইলে পারসোনাল ওয়েবসাইট তৈরি করেও আপনি গুগোল থেকে মাসে ভাল পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারেন। এবং বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশর চাকরির বাজারে  কন্টেন্ট রাইটারের ভাল ডিমান্ড আছে। বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল ওয়েবসাইট কোম্পানি কন্টেন রাইটার খুজে।   

 ২। ইউটিউবিং!

আপনারা ভাবছেন ইউটিবিং কি?  আমরা তো ইউটিউব চিনি, ইউটউবিং কি এটা তো চিনি না। হ্যা আমরা অনেকেই জানি না বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশের অনেকেই এই ইউটিউবিং করে প্রতি মাসে ১ লক্ষ থকে ৫ লক্ষেরও বেশি টাকা ইনকাম করছে। এখন হয়তো ভাবছেন কিভাবে একজন ইউটিউব থেকে লক্ষ টাকা ইনকাম করে?! হ্যা আমার আপনার মত মানুষেরাই লক্ষ টাকা ইনকাম করে! আপনি একটু ভাবেন! আপনার মধ্যে কি প্রতিভা আছে?  আপনি ছবি আকতে পারেন? বিভিন্ন পুরাতন জিনিসপত্র দিয়ে ক্রাফট তৈরী করতে পারেন? হাতের কাজ করতে পারেন? আপনি যা কিছু করতে পারেন আপনি শুধু এই কাজ গুলোকে স্মার্টফোন বা ক্যামেরা দিয়ে ভিডিও করেই আপনি ইউটিউবে আপলোড করতে পারেন। তার জন্য আপনাকে শুধু ইউটিউবে একটা চেনেল খুলতে হবে। আর এই চেনেল কিভাবে খুলতে হয়, কিভবে ভিডিও আপলোড করতে হয় এই সব ভিডিও আপনি ইউটিউবে টিউটোরিয়াল আছে তা দেখে শিখতে পারেন। 

৩। ডাটা এন্ট্রি! 

আপনার একটি কম্পিউটার আছে?  আপনি খুব দ্রুত টাইপিং করতে পারেন? তাহলে এই কাজটি আপনার জন্য। ডাটা এন্ট্রি বলতে আমি আপনাদের বুঝাইতে চাইছি আমরা কোন ডাটা বা লেখা কম্পিউটারে টাইপিং করে সেভ করে রাখা। আপনি ইংরেজিতে মোটামটি ভাল পার্দশি হলে তাহলে আপনি বিভিন্ন অনলাইন ওয়েবসাইটে ডাটা এন্ট্রি করে অনেক ভাল পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশে সরকারি ও বেসরকারি দুই সেক্টরেই ডাটা এন্ট্রি কাজের অনেক চাহিদা আছে আপনি চাইলে শুধু  টাইপিং এর উপর দক্ষতা অর্জন করলেই আপনি এই কাজটি করতে পারেন।   

৪। ফেসবুক মার্কেটিং!    

ফেসবুক কি শুধু লাইক, কমেন্ট শেয়ার করা? বা মেসেন্জারে চেটিং করা? আপনি কি জানেন এই ফেসবুক মার্কেটিং করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করা যায়! এখন আপনার প্রশ্ন জাগতে পারে কিভাবে এই ফেসবুক মার্কেটিং করে? সবার আগে আপনি কি প্রডাক্ট সেল করবেন সেটা নির্ধারন করতে হবে সবচেয়ে ভাল হয় আপনার নিজের তৈরি প্রোডাক্ট হলে। উদাহরণ হিসাবে বলা যায় টাংগাইলে শাড়ী বিখ্যাত আপনার বাসা যদি টাংগাইলে হয় তাহলে আপনি টাংগাইলের শাড়ী বিক্রি করতে পারেন। আবার রাজশাহীর আম এক কথায় বলতে গেলে আপনি যে এলাকার সেই এলাকার বিখ্যাত জিনিস নিয়ে বিসনেস করতে পারেন। আবার আপনি নিজের হাতের তৈরির বিভিন্ন পোশাক বা ক্রাফটও সেল করতে পারেন। এখন আসল কথায় আসা যাক, আপনি যেভাবে মার্কেটিং করবেনঃ আপনি ফেসবুকে বাই এন্ড সেল নামে সার্চ করলে অনেক গ্রুপ পাবেন এই গ্রুপে জইন করতে হবে। এই সব গ্রুপে হাজার হাজার মেম্বার আছে এখানে ফ্রি তে মার্কেটিং করতে পারবেন। এবং আপনি একটা ফেসবুক পেজ খুলেও ফ্রি এড বা পেইড এড এর মাধ্যমে আপনার প্রোডাক্ট সেল করতে পারেন।  কিভাবে ফেসবুকে পেজ খুলতে হয় এবং কিভাবে ফেসবুকে পেইড এড দিতে হয় আপনি ইউটিউবে টিউটোরিয়াল দেখে শিখতে পারেন।     

৫। গ্রাফিক্স ডিজাইন! 

গ্রাফিক্স ডিজাইন হল অনেক বড় মার্কেট প্লেস। কারন  ডিজিটাল বিসনেস করতে হলে গ্রাফিক্স ডিজাইনার লাগবেই। বর্তমানে আমাদের চাকরির বাজারে গ্রাফিক্স ডিজাইনের অনেক ডিমান্ড আছে। কারনঃ আমাদের বিসনেস এর জন্য লোগো, ব্যানার, পোস্টার ডিজাইন করতে হয়। আমরা কিন্তু রাস্তাঘাটে নানা ধরনের ব্যানার দেখতে পাই এই গুলে কিন্তু গ্রাফিক্স ডিজাইনার দিয়ে ডিজাইন করা। আপননি যদি প্রফেশনাল ভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেন তাহলে আপনি দেশি বেদেশী অনেক কোম্পানিতে ভাল টাকার বেতনে চাকরি পেতেও পারেন। গ্রাফিক্স ডিজাইন বলতে এডোবি ফোটোশপ ও এডোবি এলিস্টাটল এই সফটওয়্যার দুইটি প্রফেশনাল ভাবে শিখতে হবে। 

৬। ওয়েবসাইট ডিজাইন!  

ওয়েবসাইট ডিজাইন বর্তমানে সারা বিশ্বের মধ্যে অনেক বিস্তার লাভ করেছে। এখন ডিজিটাল বিসনেস করতে হলে একটা ওয়েবসাইট থাকতেই হবে ব্যাপারটা এই রকম হয়ে দাঁড়িয়েছে। আপনি যদি ওয়েবসাইট ডিজাইন শিখতে পারেন বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইটে আপনি ভাল পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারবেন। দিনদিন আমাদের বাংলাদেশেও অনেক ওয়েবসাইটের চাহিদা বারছে। এই ওয়েব ডিজাইন করে একজন ওয়েব ডিজাইনার মাসে ১ লক্ষ থেকে ৩ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারে।   ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে হলে আপনাকে কয়েকটি প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ শিখতে হবে যেমনঃ HTML, CSS,JAVA SCRIPT, BOOTSTRAP etc.   

৭। ব্লগিং! 

ডিজিটাল যুগে নিজের একটা পার্সোনাল ওয়েবসাইট থাকবে না এটা কেমন কথা।  নিজেকে সব সময় আপডেট রাখতে হলে একটা ওয়েব সাইট থাকতে হবে ব্যাপার টা এখন এই রকম হয়ে দারিয়েছে। এখন একটা ওয়েবসাইট চালু করতে হলে আপনাকে কোন রকম প্রোগ্রামিং জানতে হবে না।  এমনকি আপনি ফ্রিতেও একটা ওয়েবসাইট চালু করতে পারেন। যেমনঃ ওয়ার্ডপ্রেস, গুগোলের ব্লগার আছে আরো অনেক আছে। এই সব সাইট গুলোর মাধ্যেমে আপনি একটি প্রোফেশনাল মানের ওয়েবসাইট খুলতে পারবেন খুব সহজে।  কিভাবে আপনি নিজেই একটা ওয়েবসাইট চালু করবেন?এই বিসয়ে আপনি ইউটিউবে হাজার হাজার ভিডিও পাবেন।  

এখন প্রশ্ন হল আপনি কিভাবে ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করবেন?  আপনি যখন নিজের ওয়েবসাইটে ইউনিক আর্টিকেল পাবলিশ করবেন তখন হাজার মানুষ গুগোলে সার্চ করে আপনার লেখা আর্টিকেল পড়তে আসবে তখন আপনার এই ওয়েবসাইটে বিভিন্ন কোম্পানি তাদের পন্য সামগ্রির এড দিবে। তার বিনিময়ে আপনি একটি স্মার্ট পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আবার গুগোল এডসেন্স থেকেও মাসে ভাল পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারেন।                  

Rafiq Islam

Written by Rafiq Islam

হ্যালো, আমার নাম রফিক ইসলাম। আমি টেক রিলেটেড যেকোন পোস্ট পড়তে বা লেখতে খুব ভালবাসি। তাই আমি টেক রিলেটেড যতটুকু জানি তাই আপনাদের সাথে শেয়ার করি ।

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ১১ থাকছে ৪৮ এমপি টেলিফোটো ক্যামেরা!

আপনি হতাশ? ভাল্লাগে না? টেনশনে আছেন?